শুক্রবার

০২ অক্টোবর ২০২০


আশ্বিন ১৬ ১৪২৭

১৪ সফর ১৪৪২

দিন বদল বাংলাদেশ

স্বাস্থ্যবিধি না মানলে দীর্ঘস্থায়ী সংক্রমণের ঝুঁকিতে দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক || দিনবদল.কম

প্রকাশিত: ১৩:৫৫, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০  
স্বাস্থ্যবিধি না মানলে দীর্ঘস্থায়ী সংক্রমণের ঝুঁকিতে দেশ

ছবি- সংগৃহীত

আসন্ন শীতে দেশে করোনা পরিস্থিতি আরো খারাপ হওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। এ জন্য মন্ত্রণালয়গুলোকে প্রস্তুতি গ্রহনের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার সচিবালয়ে এ সংক্রান্ত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় করোনা পরিস্থিতি ও তার মোকাবিলা বিষয়ে বৈঠক হয়েছে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি জানান, করোনা ভাইরাসের সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবিলায় নিজ নিজ মন্ত্রণালয়কে কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণের নির্দেশনা দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এসব কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণ করে তা আগামী ১৫ দিনের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানোরও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কোভিডের সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবিলায় সারা দেশে লকডাউনের কথা ভাবছে না সরকার। কারণ লকডাউনে দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অর্থনীতি সচল রেখেই করোনার সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবিলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরো জানান, পরবর্তী অবস্থা পর্যালোচনা করেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সভায় বলা হয়েছে, অক্টোবর-নভেম্বরে শীতের প্রকোপ বাড়লে কোভিডের সংক্রমণ আবার বাড়তে পারে। কোভিডের সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীরও নির্দেশনা রয়েছে। অতীতের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে এবং তা থেকে শিক্ষা নিয়ে কোভিডের সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। সেই নির্দেশনা বাস্তবায়নে আগে থেকেই প্রস্তুতি গ্রহণের কথা বলা হয়েছে। তাই মন্ত্রণালয়গুলো নিজ নিজ কর্মপরিকল্পনা তৈরি করবে এবং তা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে জানাবে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ পরবর্তী সময়ে সেগুলোকে সমন্বয় করে চূড়ান্ত পরিকল্পনা করবে।

এদিকে, বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শীতে করোনা পরিস্থিতি খারাপ হবে এমন কোন বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা নেই। স্বাস্থ্যবিধি না মানলেই করোনার ঝুঁকি বাড়বে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, করোনা নিয়ে এ পর্যন্ত যা বলা হয়েছে সবই অনুমানভিত্তিক। শীতের দেশেও হয়েছে, আবার গরমের দেশেও হয়েছে। প্রাণঘাতী এ ভাইরাস থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। এক্ষেত্রে যা যা করার তাই করতে হবে। এখন কেউ স্বাস্থ্যবিধি মানতে চায় না। গ্রামে তো আগেই নেই, শহরের মানুষও মাস্ক পরছে না। এ ধরনের প্রবণতা বিপজ্জনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ডা. মুজিবুর রহমান বলেন, মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আইনের কঠোর প্রয়োগ প্রয়োজন। দেশে পরীক্ষা কম করায় আক্রান্তের হার কম। এতে আত্মতৃপ্তিতে থাকার সুযোগ নেই। সামনে বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। দেশ সংক্রমণের ঝুঁকির দিকে যাচ্ছে।

করোনা মোকাবিলায় গঠিত জাতীয় টেকনিক্যাল পরামর্শক কমিটির সদস্য ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানতে আইনের কঠোর প্রয়োগ করতে হবে। সবার মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে হবে। যে পদ্ধতিতে স্বাস্থ্যবিধি মানানো যায় সেই পদ্ধতি প্রয়োগ করতে হবে।

দিনবদল বিডি/ এআর

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়