নারীকে নির্যাতনের পর গাছে বেঁধে রাখার অভিযোগ

দিন বদল বাংলাদেশ ডেস্ক || দিন বদল বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ সন্ধ্যা ০৭:২৭, শুক্রবার, ১৫ জুলাই, ২০২২, ৩১ আষাঢ় ১৪২৯
নির্যাতনের শিকার ওই নারী খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ছবি: সংগৃহীত

নির্যাতনের শিকার ওই নারী খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ছবি: সংগৃহীত

খুলনার কয়রা উপজেলায় এক নারীকে নির্যাতনের পর গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখার অভিযোগ উঠেছে। পরে জরুরি সেবা নম্বরে (৯৯৯) কল পেয়ে প্রায় এক ঘণ্টা পর পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। গত ১১ জুলাই সকালে এ ঘটনা ঘটলেও আজ শুক্রবার সকালে বিষয়টি জানাজানি হয়। বর্তমানে ওই নারী খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ওই নারী এখনো ঠিকমতো কথা বলতে পারছেন না।

হাসপাতালে ওই নারীর স্বামী সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনার এক দিন পর তার স্ত্রীর জ্ঞান ফেরে। তবে ১০ থেকে ১৫ মিনিট তা স্থায়ী হওয়ার পর আবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। জ্ঞান ফেরার পর অসংলগ্ন কথা বলছিলেন। বারবার বলছিলেন, ‘আমাকে মেরো না।’

ওই নারীর শ্বশুরবাড়ি ও বাবার বাড়ি একই এলাকায়। তবে ঘটনাটি ঘটেছে বাবার বাড়িতে। এলাকাবাসী ও ওই নারীর আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পারিবারিক জমি নিয়ে ওই নারীর বাবা ও চাচাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব রয়েছে। বর্তমানে সেটি আদালতে বিচারাধীন। ১১ জুলাই ওই নারীর চাচা, চাচাতো ভাইসহ ২৫ থেকে ৩০ জন লোক ওই নারীর বাবার জমিতে ঘর তুলতে আসেন। এ সময় ওই নারী তাদের বাধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তার চাচাতো ভাইয়েরা তাকে মারধর করতে করতে বিবস্ত্র করে ফেলেন। পরে তাকে বাড়ি থেকে বের করে সড়কের পাশের একটি মেহগনি গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখেন। প্রায় এক ঘণ্টা এভাবে নির্যাতন চলতে থাকে।

কয়রা থানার পরিদর্শক তদন্ত মো. ইব্রাহিম আলী বলেন, ৯৯৯ থেকে কল পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠায়। ওই নারীর বাবাকে মুঠোফোনে কল করে থানায় অভিযোগ দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে, কিন্তু তিনি থানায় আসেননি। অভিযোগ পেলে আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দিনবদলবিডি/এইচএআর

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়