ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বেশির ভাগ স্টল নির্মাণ শেষ হয়নি

নিউজ ডেস্ক || দিন বদল বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ সকাল ১০:৫৪, মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২৪, ৯ মাঘ ১৪৩০
ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

মেলায় কাজ করতে আসা কাঠ ও রংমিস্ত্রি সাইদুর রহমান বলেন, ‘সকাল ৮টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত কাজ করছি। তার পরও শেষ করতে পারছি না। রং, সাজসজ্জা সব মিলিয়ে চার থেকে পাঁচ দিনের মধ্যে চালু হয়ে যাবে।

পূর্বাচলে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টার (বিবিসিএফইসি) স্থায়ী ঠিকানায় তৃতীয়বারের মতো শুরু হয়েছে মাসব্যাপী ২৮তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা (ডিআইটিএফ)-২০২৪।

 

পূর্বাচলের ৪ নম্বর সেক্টরে মেলার স্টল তৈরির কাজ এখনো চলছে। নিজেদের স্টল-প্যাভিলিয়ন তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন ব্যবসায়ীরা। রবিবার ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের দ্বিতীয় দিনে গতকাল দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ছিল খুবই কম। তিন ভাগের দুই ভাগ স্টলের কাজ এখনো শেষ হয়নি। 

 

মেলায় আগতদের যাতায়াতের জন্য পাঁচটি স্পটে বিআরটিসির ৬০টি স্পেশাল বাস প্রস্তুত থাকলেও যাত্রী কম হওয়ায় ৩০টি চালু ছিল বলে জানিয়েছেন বিআরটিসির ম্যানেজার অপারেশন মো. কামরুজ্জামান। সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, মেলায় বঙ্গবন্ধুর জীবন ও আদর্শ, স্বাধীনতা সংগ্রাম, উন্নত শিল্পসমৃদ্ধ সোনার বাংলা নির্মাণে জাতির পিতার ভাবনা ঘিরে বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করা হচ্ছে। 

 

সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম তুলে ধরে দেশের মেগা প্রকল্পের ওপর প্রাধান্য দিয়ে পদ্মা সেতু দিয়ে রেললাইন, বঙ্গবন্ধু ট্যানেল, রূপপুর পরমাণু কেন্দ্র আদলে মেলার প্রধান ফটক তৈরি করা হয়েছে। মেলার গেট ইজারাদার মেসাস আবদুল্লাহ এন্টারপ্রাইজের ম্যানেজার আবদুল আজিজ জানান, দ্বিতীয় দিনে লোক সমাগম কম থাকায় চারটি কাউন্টার চালু রাখা হয়েছে। এ পর্যন্ত ৩ হাজার ৮০০ টিকিট বিক্রি হয়েছে। 

 

মেলায় কাজ করতে আসা কাঠ ও রংমিস্ত্রি সাইদুর রহমান বলেন, ‘সকাল ৮টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত কাজ করছি। তার পরও শেষ করতে পারছি না। রং, সাজসজ্জা সব মিলিয়ে চার থেকে পাঁচ দিনের মধ্যে চালু হয়ে যাবে। খাদ্যপণ্য বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ‘টেস্টি ট্রিট’-এর আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক শরিফ হোসেন জানান, এ বছর ২ হাজার ৫০০ বর্গফুটের স্টল নিয়েছি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের কারণে মেলায় পণ্য ঢুকতে দেরি হয়েছে। ফলে স্টল সাজাতে দেরি হয়। এখন থেকে স্টল সাজিয়ে প্রস্তুত করা হবে। তিনি বলেন, ২০০ টাকার কাস্টার বন বাণিজ্য মেলায় বিক্রি হবে ১৬০ টাকা, ডিম পোলাও ও ডিম খিচুরি ৯০ টাকায় বিক্রি হবে।

 

যা অন্যান্য সময়ের চেয়ে কম দাম। লাবণ্য কাবাবের মালিক মো. মোজাম্মেল জানান, আগামীকালের মধ্যে আমাদের স্টল রেডি করতে পারব। তালিকা না পাওয়া পর্যন্ত আগের দামে খাবার বিক্রি হবে। জয়িতা ফাউন্ডেশনের শাহিনা বেগম বলেন, আমরা জয়িতারা বিভিন্ন পণ্য কমদামে বিক্রি করতে পারব। প্রধানমন্ত্রী নিজেই জয়িতা ফাউন্ডেশন দেখভাল করেন।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সচিব বিবেক সরকার বলেন, এবার দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে ২১ দিন পিছিয়ে শুরু হয়েছে। দু-তিন দিনের মধ্যে স্টল প্রস্তুত হয়ে যাবে। দেরির কারণ হিসেবে তিনি বলেন, এবার মেলার তারিখ নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছিল। ব্যবসায়ীদের মধ্যে যারা বরাদ্দ পেয়েছেন তারা স্টল বসানোর সময় হাতে পায়নি। এটা সাময়িক সমস্যা।

দিনবদলবিডি/Hossain

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়