যে কারণে নওয়াজ নন, শেহবাজ হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

দিন বদল বাংলাদেশ ডেস্ক || দিন বদল বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ সকাল ১০:০৪, বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ২ ফাল্গুন ১৪৩০
ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এতে কোনও রাজনৈতিক দলই সরকার গঠনে এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। তবে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের খানের দল পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সবচেয়ে বেশি আসনে জয় পেয়েছেন। কিন্তু তারপরও সরকার গঠন করতে পারছে না দলটি। এই পরিস্থিতিতে দেশটির রাজনৈতিক অঙ্গনে বিরাজ করছে এক অস্থিরতা। তবে জোট গঠনের মাধ্যমে সরকার গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করেছে নওয়াজ শরিফের দল পিএলএম-এন। তবে নওয়াজ শরিফ নন, প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন তার ছোট ভাই শেহবাজ শরিফ। কিন্তু কেন?

 

গত দশকের মাঝপথে দুর্নীতির মামলায় আজীবন নিষেধাজ্ঞাপ্রাপ্ত হয়ে ব্রিটেনে পাড়ি জমান পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। গত ৮ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের আগে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।

এ সময় সর্বমহলের কাছে দিনের আলোর মতো পরিষ্কার ছিল, নওয়াজকে সামরিক বাহিনী ক্ষমতায় বসাতে মরিয়া। তবে ভোটে ইমরানপন্থীদের অবিস্মরণীয় জয়ের পর জোট রাজনীতির ঘটনাপ্রবাহে নিজেকে প্রধানমন্ত্রিত্বের দৌড় থেকে সরিয়ে নিয়েছেন নওয়াজ। আর এর পেছনের কারণ খুঁজতে নানা সমীকরণ মিলিয়ে দেখছে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমগুলো।
সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে অনাস্থা ভোটে হারানোর পর জোট সরকারের নেতৃত্ব দেন নওয়াজের ভাই শেহবাজ শরিফ। ভাইয়ের প্রত্যাবর্তনের পর থেকে ভোটের ফল ঘোষণার আগ পর্যন্ত নানা সময় তিনি বলেছেন, পিএমএল-এন-এর প্রধান নওয়াজ শরিফকে চতুর্থ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী পদে দেখতে মুখিয়ে রয়েছেন তিনি।

এই নির্বাচনে ইমরানপন্থী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সর্বোচ্চ ৯৩ আসনে জয় পেলেও দল হিসেবে সর্বোচ্চ আসন পাওয়া পিএমএল-এন সরকার গঠনে ভুট্টো পরিবারের পিপলস পার্টির (পিপিপি) দ্বারস্থ হয়েছে, যারা পেয়েছে ৫৪ আসন। মঙ্গলবার ইসলামাবাদে মুসলিম লীগ-কায়েদে আজম (পিএমএল-কিউ) প্রধান চৌধুরী সুজাতের বাসভবনে মিলিত হন শেহবাজ, পিপিপির কো-চেয়ারম্যান আসিফ আলি জারদারিসহ এমকিউএম-পি, আইপিপি ও অন্যান্য দলের নেতারা।

পরে সংবাদ সম্মেলনে জোট সরকার গঠনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হয়। এর কিছুক্ষণ পরই নওয়াজকন্যা মরিয়ম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানান, শেহবাজ হচ্ছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী এবং তিনি হচ্ছেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী। নওয়াজ তাদের পর্দার আড়াল থেকে নির্দেশনা দেবেন।

কেন নওয়াজ শেষ মুহূর্তে সরে দাঁড়ালেন— বিষয়টি ব্যাখা করতে গিয়ে পাকিস্তানি সাংবাদিক রিজওয়ান শেহজাদ বলেন, “নির্বাচনী রায়ের বিভক্তি, শেষ মুহূর্তে তার ভাই শেহবাজের অবস্থানের পরিপ্রেক্ষিতে নিজেকে নতুন একটি রাজনৈতিক ভূমিকায় দেখা ছাড়া বিকল্প কিছু খুঁজে পাননি নওয়াজ শরিফ।”

নওয়াজের নিজের অবস্থানের ব্যাপারটি কেমন— এমন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন মেয়ে মরিয়ম। তিনি বলেন, “নওয়াজ দলের ‘নির্বাচক’ বা ‘মনোনয়নকারীর’ ভূমিকায় থাকবেন, যিনি পর্দার আড়াল থেকে ভূমিকা রাখবেন।”

আবার ওই সংবাদ সম্মেলনের সঙ্গেও নওয়াজের সিদ্ধান্তের যোগসূত্র খোঁজা হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন না পিপিপি চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি। আবার বাবা আসিফ আলি জারদারির সঙ্গে তার বেশ কিছু মতভেদও পরিষ্কার হয় সংবাদ সম্মেলনে। তার অনুপস্থিতির সঙ্গে কি নওয়াজের সিদ্ধান্তের কোনও সম্পর্ক রয়েছে— এমন জল্পনা এখন পাকিস্তানজুড়ে।

পিএমএল-এনের নেতাকর্মীদের মধ্যেও বিষয়টি নিয়ে কানাঘুষা রয়েছে। তবে এ নিয়ে কেউই প্রকাশ্যে কথা বলছে না। অন্তত বুধবার পর্যন্ত পরিস্থিতি তেমনই। অনেকে বলছেন, নওয়াজের এই সিদ্ধান্তের পেছনে নিশ্চয়ই কোনও জটিলতা রয়েছে। এই সিদ্ধান্ত আপনা-আপনি আসেনি। বাইরের কোনও জটিলতাই তাকে এই সিদ্ধান্ত নিতে তাড়িত করেছে।

নওয়াজের ওপর থেকে যখন একের পর এক আইনি ঝামেলা উঠে যাচ্ছিল, তার বিরুদ্ধে থাকা মামলা খারিজ হচ্ছিল; ওই সময় অনেকেই শঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, প্রধানমন্ত্রী পদে না-ও দেখা যেতে পারে নওয়াজকে। তখন আরও বলা হচ্ছিল, শেহবাজের নেতৃত্বে পিপিপি, পিএমএল-এন, জেইউআই-এফ এবং অন্যান্য দল নিয়ে গঠিত পাকিস্তান ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্ট (পিডিএম) জোট সরকারের প্রথম দফার শাসন আরও এক দফা আসতে পারে। বাস্তবতা হচ্ছে, চৌধুরী সুজাতের বাসায় একমাত্র জেইউআই-এফ ছাড়া পিডিএম সরকারের প্রধান প্রধান শরিকরা ছিল। বরং আরও কিছু দল বেড়েছে। অর্থাৎ পাকিস্তানের রাজনৈতিক ঘটনাপ্রবাহের মোড় সেই দিকেই।

এখন দ্বিতীয় দফায় পিডিএম বা সেই ধরনের কোনও জোট সরকারের গঠনপ্রক্রিয়া নিয়ে পাকিস্তানি গণমাধ্যম ‘দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন’ বলছে, শেহবাজের সঙ্গে বর্তমান এস্টাবলিশমেন্ট (সামরিক বাহিনী) নেতৃত্বের সম্পর্ক উষ্ণ। নওয়াজের বদলে শেহবাজকেই নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত করার নির্দেশনা তারাই দিতে পারে।  

২০১৮ সালে পিটিআই সর্বোচ্চ আসনে জয়লাভ করে জোট সরকার গঠন করে তিন বছরেরও বেশি ক্ষমতায় থাকার পর পিডিএম জোটের কাছে আস্থা ভোটে হেরে যায়। ওই সময় শেহবাজের নেতৃত্বাধীন সরকার নিয়ে ভোটের আগে বহুবার কথা বলেছেন বিলাওয়াল। তিনি বলতেন, “তিনি বাবাদের (বড়দের) রাজনীতি আর চান না।”

কিন্তু সর্বশেষ জোটপ্রক্রিয়াকে পিডিএম জোটের সম্প্রসারণ বললে একদমই ভুল হয় না।    

আবার ওই সংবাদ সম্মেলন হওয়ার আগে ইসলামাবাদে আলাদা সংবাদ সম্মেলন করে বিলাওয়াল জানান, তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদ চান না, তবে তার দল পদটির জন্য পিএমএল-এনের প্রার্থীকে সমর্থন করবে। আবার তিনি এ-ও জানান, পিপিপি নতুন সরকারের অংশ হবে না। কিন্তু চৌধুরী সুজাতের বাসার সংবাদ সম্মেলনে জানা যায়, পিপিপি নতুন সরকারের মন্ত্রিসভায় যোগদান করবে। অবশ্য দ্বিতীয় পর্যায় থেকে অংশগ্রহণের কথা জানা গেছে।

পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, বাবা আর ছেলের বিরোধের কোনও সমীকরণ থাকতে পারে। এতে নওয়াজের প্রধানমন্ত্রিত্ব গ্রহণ না করার সংকটও লুকিয়ে থাকতে পারে। কারণ নির্বাচনের আগে নওয়াজকে সেনাবাহিনীর ‘নতুন প্রিয়পাত্র’ আখ্যা দিয়েছিলেন বিলাওয়াল। আবার নওয়াজকে চতুর্থ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী করতে সেনাবাহিনী যে জোর চেষ্টা চালাচ্ছে, এমন কথা কয়েকবার বলেছেন বিলাওয়াল।  

আবার পাকিস্তানের জিও টিভির একটি অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার রাতের দিকে ইঙ্গিতপূর্ণভাবে বলা হয়, “শেহবাজের নেতৃত্বে জোট সরকারের প্রতি সমর্থন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পিপিপি। বিলাওয়ালের সংবাদ সম্মেলনে এর প্রতিফলন রয়েছে।”

দিনবদলবিডি/Anamul

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়