ড. ইউনূসের অভিযোগের জবাবে যা বললো গ্রামীণ ব্যাংক

নিউজ ডেস্ক || দিন বদল বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ বিকাল ০৩:১৭, শনিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ৪ ফাল্গুন ১৪৩০
ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

 নিজেদের ইচ্ছেমতো গ্রামীণ ব্যাংক চালাচ্ছে’ বলে যে অভিযোগ তোলেন ড. ইউনূস; তা একেবারেই মিথ্যা-বানোয়াট। একই সঙ্গে এটি এক কোটি পাঁচ লাখ সদস্যের অধিকার খর্ব করারও শামিল।

এবার ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে নিয়ে ‘বিস্ফোরক’ তথ্য দিলো খোদ গ্রামীণ ব্যাংক। এই নোবেলজয়ীর আনা বিভিন্ন অভিযোগেরও কড়া জবাব দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এমনকি সাম্প্রতিক সংবাদ সম্মেলনে দেয়া তার বক্তব্যকে বিভ্রান্তিমূলক আর অসত্য বলে দাবি করেছেন ব্যাংকটির মিডিয়া সেলের প্রধান আঞ্জু আরা বেগম।

গ্রামীণ ব্যাংকের পক্ষ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি বলেন, ‘জবরদখলের মাধ্যমে আটটি প্রতিষ্ঠান নিজেদের ইচ্ছেমতো গ্রামীণ ব্যাংক চালাচ্ছে’ বলে যে অভিযোগ তোলেন ড. ইউনূস; তা একেবারেই মিথ্যা-বানোয়াট। একই সঙ্গে এটি এক কোটি পাঁচ লাখ সদস্যের অধিকার খর্ব করারও শামিল। এজন্যই ইউনূসকে নিয়ে জাতির সামনে সঠিক তথ্য তুলে ধরার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আর্থিক সহযোগিতায় সৃষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চেয়ারম্যান কিংবা নির্দিষ্ট সংখ্যক পরিচালক নিয়োগ দেয়ার এখতিয়ার রয়েছে গ্রামীণ ব্যাংকের। মূলত গ্রামীণ টেলিকম আর গ্রামীণ কল্যাণের আর্টিকেল অব অ্যাসোসিয়েশনের নির্দিষ্ট ধারা মেনেই এসব নিয়োগ দেয়া হয়; যা ড. ইউনূসের ক্ষেত্রেও মানা হয়েছিল।

এরই ধারাবাহিকতায় ১২ ফেব্রুয়ারি বোর্ড সভায় গ্রামীণ টেলিকম, গ্রামীণ কল্যাণসহ সাতটি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ও নির্দিষ্ট সংখ্যক পরিচালক মনোনয়ন দেয় গ্রামীণ ব্যাংক। অথচ লিখিত বক্তব্যে নিজেকে এসব প্রতিষ্ঠানের মালিক দাবি করে ড. ইউনূস যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা ব্যাংকটির ঋণগ্রহীতার স্বার্থের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ও আইন পরিপন্থী।

দিনবদলবিডি/Mamun

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়