চোখের জলে সাদা মানিককে বিদায় দিলেন আনজিরা খাতুন

দিন বদল বাংলাদেশ ডেস্ক || দিন বদল বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ রাত ০৮:২০, সোমবার, ৪ জুলাই, ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯

তাকে একটু প্রশান্তি দিতে মমতাময়ী মায়ের মতো বাতাস করছেন এক নারী। আর সাদা মানিককে ঘিরে রয়েছে গ্রামের মানুষ। দেখে মনে হচ্ছে এলাকার সুপরিচিত ও বিখ্যাত কোনো ব্যক্তিকে গ্রাম থেকে বিদায় জানানো হচ্ছে।

বলছিলাম ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কাশিপুর গ্রামের দিনমজুর ময়নুদ্দিন মন্ডলের পালন করা গরু সাদা মানিকের কথা।

রবিবার (৩ জুলাই) বিকেলে তাকে বিক্রির উদ্দেশ্যে ঢাকার গাবতলী পশুর হাটে নেওয়া হয়। বিদায়কাল সাদা মানিককে পরম আদর-যত্নে পালন করা ময়নুদ্দিনের স্ত্রী আনজিরা খাতুনের চোখে জল এসে যায়।

গ্রামের দিনমজুর ময়নুদ্দিনের টিনের চালার ঘরে বেড়ে উঠেছে সাদা মানিক। দেখতে মাথার দুই পাশে কালো, পুরো শারীর ধবধবে সাদা, খাড়া দুটি শিং, একটু দুষ্টু স্বভাব ও প্রভুভক্ত। এ কারণে আদর করে নাম রাখা হয়েছে সাদা মানিক। এক বছর আগে নিজের পোষা গরু বিক্রি করে পাশের গ্রাম থেকে ফ্রিজিয়ান জাতের এই ষাঁড় গরুটি ২ লাখ ৮০ হাজার টাকায় কেনেন সদর উপজেলার কাশিপুর গ্রামের দিনমজুর ময়নুদ্দিন মন্ডল।

তিন বছরে সাদা মানিকের আকার হয়েছে বিশাল। দৈর্ঘ্যে ১১ ফুট, উচ্চতা ৬ ফুট এবং ৯ ফুট গোলাকার সাদা মানিকের ওজন প্রায় ৩২-৩৩ মণ। এই গরুটির দাম হাঁকছেন সাড়ে ১৩ লাখ টাকা।

ময়নুদ্দিনের স্ত্রী আনজিরা খাতুন জানান, তিনি এক বছর ধরে এই গরুটা লালন-পালন করেছেন। তার গায়ে কখনো ময়লা হতে দেননি। দিনে তিন বার গোসল করাতেন। তাকে শুধু মাঠের কাঁচা ঘাস, বাড়িতে উৎপাদিত গম, ছোলা ও ধান খাওয়াতেন। গরিব হওয়ায় ভালো কোনো খাবার খাওয়াতে পারেননি। এখন এই গরুটি বিক্রি করে নিজেদের সংসারের খরচ এবং আরও দুটি গরু কেনার আশা তার। তাকে বিদায় দিতেও অনেক কষ্ট হচ্ছে। তারপরও তাকে বিক্রি করতে হবে। এমন কথা বলার সময় তার চোখে জল এসে যায়।

দিনমজুর ময়নুদ্দিন বলেন, এক বছর আগে নিজের বাড়িতে পোষা একটি ষাঁড় ২ লাখ ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করি এবং দুটি ছাগল বিক্রি করে ২ লাখ ৮০ হাজার টাকায় গরুটি পাশের গ্রাম থেকে ক্রয় করি। তখন গরুটির বয়স ছিল দুই বছর এবং ওজন ছিল ১০ মণ। বাড়িতে নিয়ে আসার পর প্রাকৃতিক উপায়েই তাকে খাওয়ানো হতো। তার খাবারের তালিকায় ছিল ছোলা, গম, ভুট্টা, ধান এবং কাঁচা ঘাস। গরিব মানুষ হওয়ায় বাজারের দামি কোনো খাবার খাওয়াতে পারিনি। কৃত্রিম উপায়ে মোটাতাজা করতে কোনো ওষুধও খাওয়ানো হয়নি। তিনি আরো বলেন, এখন বাজারে এই গরুর মূল্য প্রায় ১০ থেকে ১১ লাখ টাকা। কিন্তু লোকাল বাজারে এর দাম উঠছে সাড়ে ৫ লাখ টাকা। যার কারণে ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছি। তাকে ঢাকার গাবতলী হাটে নিয়ে যাব। আশা করি সেখানে সাদা মানিকের ন্যায্যমূল্য পাব।

দিনবদলবিডি/এমআর

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়