এবার পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিলল ৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা

দিনবদলবিডি ডেস্ক || দিনবদলবিডি.কম

প্রকাশিত: সন্ধ্যা ০৭:৫৭, শনিবার, ২ জুলাই, ২০২২, ৩০ শ্রাবণ

শনিবার সকাল ৮টার দিকে মসজিদের দান সিন্দুক খোলার পর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত টাকা গণনা শেষে এই হিসাব পাওয়া যায়। বিপুল পরিমাণ দানের এই নগদ টাকা ছাড়াও বিভিন্ন বৈদেশিক মুদ্রা ও দান হিসেবে বেশ কিছু স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া গেছে।

এর আগে সর্বশেষ গত ১২ মার্চ দান সিন্দুক খোলা হয়েছিল। তখন সর্বোচ্চ তিন কোটি ৭৮ লাখ ৫৩ হাজার ২৯৫ টাকা পাওয়া যায়। সাধারণত তিন মাস পর পর পাগলা মসজিদের দান সিন্দুক খোলা হয়। এবার ৩ মাস ২০ দিন পর দান সিন্দুক খোলা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, শনিবার সকাল ৮টার দিকে জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে মসজিদের আটটি দান সিন্দুক খোলা হয়। তবে আটটি দানসিন্দুকের মধ্যে ছয়টি দান সিন্দুকই খোলার অন্তত ১৫ দিন আগেই পূর্ণ হয়ে যাওয়ায় সেগুলোতে দান গ্রহণ বন্ধ রাখা হয়েছিল। দান সিন্দুক থেকে টাকা খুলে প্রথমে বস্তায় ভরা হয়। এবার বড় বস্তায় ১৬ বস্তার কিছু বেশি টাকা হয়েছে। এরপর শুরু হয় দিনব্যাপী টাকা গণনা। টাকা গণনায় মসজিদ মাদরাসার ১৩২ জন ছাত্র, রূপালী ব্যাংকের ৭০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং ৩৪ জন মসজিদ মাদরাসার কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ মোট ২৩৬ জন মানুষ অংশ নেন।

কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফার তত্ত্বাবধানে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার উবায়দুর রহমান সাহেল ও মাহবুব হাসান, পাগলা মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত উদ্দীন ভূঞা, রূপালী ব্যংকের এজিএম রফিকুল ইসলাম, পাগলা মসজিদ কমিটির সিন্দুক খোলা কমিটির সদস্যসহ বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গ ও সিনিয়র সাংবাদিকরা উপস্থিত থেকে টাকা গণনার কাজ তদারকি করেন। টাকা গণনার এই এলাহী কাণ্ড দেখতে শহরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ মসজিদে ছুটে যান।

পাগলা মসজিদের মালামাল সংরক্ষক বিল্লাল হোসেন জানান, প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ মসজিদের দান সিন্দুকগুলোতে নগদ টাকা-পয়সা ছাড়াও স্বর্ণালঙ্কার দান করেন। দানসিন্দুকে দান করা ছাড়াও মসজিদের নিলামঘরে প্রতিদিন মানুষ নানা ধরনের জিনিসপত্র দান করেন। এসবের মধ্যে রয়েছে গরু-ছাগল, হাঁস-মুরড়ি, ফল-ফলাদি, কোরআন শরীফ ইত্যাদি।

দিনবদলবিডি/এমআর

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়