দাদী খালেদার পাশে দুই নাতনি জাহিয়া ও জাফিয়া

দিনবদলবিডি ডেস্ক || দিনবদলবিডি.কম

প্রকাশিত: দুপুর ০১:৪৫, সোমবার, ২৭ জুন, ২০২২, ৩০ শ্রাবণ
দাদী খালেদার পাশে দুই নাতনি জাহিয়া ও জাফিয়া

ফাইল ফটো

নানীর পাশে থেকে তার শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নিতে  লন্ডন থেকে ঢাকায় এসেছেন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর দুই মেয়ে জাহিয়া রহমান ও জাফিয়া রহমান।

রবিবার (২৬ জুন) দুপুর সোয়া বারটার দিকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে বিএনপি চেয়ারপারসনের দুই নাতনি হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান। এরপর বিকেল পৌনে তিনটার দিকে তারা খালেদার বাসভবন ফিরোজায় প্রবেশ করেন বলে জানা গেছে।

এদিকে জানা গেছে, গত শুক্রবার হাসপাতাল থেকে বাসায় ফেরার পর খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি, অবস্থা আগের মতোই স্থিতিশীল রয়েছে। শারীরিক জটিলতা থাকলেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে তাকে বসুন্ধরার এভারকেয়ার হাসপাতাল থেকে গুলশানের বাসভবনে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই তার চিকিৎসা চলছে।

বুকে ব্যথা নিয়ে গত ১০ জুন রাত ৩টায় এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে ভর্তি হন ৭৬ বছর বয়সী খালেদা জিয়া। পরদিন সোমবার তার হৃদপিণ্ডে একটি ব্লক অপসারণ করে স্টেন্ট (রিং) বসানো হয়।

খালেদার বর্তমান শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, আমার সাথে ডা. জাহিদ হোসেনের (খালেদার ব্যক্তিগত চিকিৎসক) কথা হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, বাসায় আসার পর থেকে ম্যাডামের নতুন করে কোনো জটিলতা তৈরি হয়েনি। তিনি আগের মতোই আছেন।

বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, ২৪ জুন বাসায় ফেরার পর খালেদা জিয়াকে দেখতে তার বাসভবনে যান বোন সেলিমা ইসলাম, ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দারের স্ত্রী ও বড় বোনের ছেলে সাইফুল ইসলাম ডিউক। চিকিৎসকদের মধ্যে নিয়মিত তাকে দেখতে যান ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. জাহিদ হোসেন। এছাড়া ডা. আল মামুন, ডা. এফ এম সিদ্দিকীও তাকে দেখতে যান। সবশেষ তার দেখভাল করতে লন্ডন থেকে এলেন কনিষ্ঠ চেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর দুই কন্যা জাহিয়া ও জাফিয়া।

এর আগে ৮১ দিন হাসপাতালে থেকে গত ১ ফেব্রুয়ারি বাসায় ফিরেন খালেদা জিয়া। সেসময় তাকে দেখতে ৬ ফেব্রুয়ারি লন্ডন থেকে দেশে আসেন কোকোর বড় মেয়ে জাফিয়া রহমান। নানীর পাশে সপ্তাহখানেক থাকার পর ১২ ফেব্রুয়ারি তিনি লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন। এছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসনের ৮১ দিন হাসপাতাল বাসের সময়টায় প্রায় আড়াই মাস ঢাকায় ছিলেন কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান ও ছোট মেয়ে জাহিয়া রহমান। তখন শাশুড়িকে দেখতে শর্মিলা নিয়মিত হাসপাতালে যেতেন।

দিনবদলবিডি/আরএজে

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়