বৃহস্পতিবার

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১


৮ আশ্বিন ১৪২৮,

১৩ সফর ১৪৪৩

দিন বদল বাংলাদেশ

মেডিকেল টেকনোলজিস্টের প্রেমের ফাঁদে নারী চিকিৎসক, অতঃপর...

নিজস্ব প্রতিবেদক || দিনবদলবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:৫৪, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১  
মেডিকেল টেকনোলজিস্টের প্রেমের ফাঁদে নারী চিকিৎসক, অতঃপর...

ছবি: সংগৃহীত

চিকিৎসক পরিচয় দেওয়া মুক্তাদির হোসেন (২৮) নামে এক যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন শামীমা নাসরিন সুমি (২৭) নামের এক শিক্ষানবিশ চিকিৎসক। এরপর পরিবার তাদের প্রেম মেনে নিয়ে বিয়েতেও সম্মতি দেয়। 

কিন্তু বিপত্তি বাঁধে যখন মেয়েটি জানতে পারেন, ওই ছেলেটি আসলে চিকিৎসক নন, সাধারণ একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট। এরপর সম্পর্কে টানাপোড়ন। সুমি সম্পর্ক ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নেন মুক্তাদিরের সঙ্গে।

কিন্তু ‘প্রেমিকাকে’ ধরে রাখতে করতে থাকেন নানা ছলে ব্লাকমেইল। একেক সময় নিজেই নিজের হাত-পা কেটে রক্ত ঝরাতে থাকেন মেয়েটির মন গলাতে। 

এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টার দিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ওই যুবকের ছুরিকাঘাতে আহত হন শিক্ষানবিশ চিকিৎসক মেয়েটি। তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

আহত সুমি বগুড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ থেকে সবে এমবিবিএস পাস করেছে। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে এফসিপিএস এর কোচিং করছেন ঢাকায়। 

তিনি জানান, বগুড়ায় লেখাপড়া করা অবস্থায় মুক্তাদির নামে এক যুবকের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। ছেলেটি তখন নিজেকে চিকিৎসক বলে পরিচয় দেয়। এরপর তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরিবার তাদের মেনে নিয়ে বিয়ের কথাতেও রাজি হয়। প্রেমের সম্পর্ক দুই মাস যাওয়ার পর গত ১০-১৫ দিন আগে তিনি জানতে পারেন, মুক্তাদির কোনো চিকিৎসক নয়। সে কুমিল্লার একটি হাসপাতালের টেকনোলজিস্ট। রোগীদের এমআরআই করায় সে।

এরপর তাদের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হতে থাকে। সুমি তার সঙ্গে আর সম্পর্ক রাখবে না জানালে মুক্তাদির বিভিন্ন ধরনের নাটক করতে শুরু করে। বিভিন্ন সময় সে পরিস্থিতি সৃষ্টি করে সুমিকে ব্লাকমেইল করতে শুরু করে। কখনো নিজের শরীরে নিজে কেটে রক্ত ঝরাতো। শাহবাগ আজিজ সুপার মার্কেটে সুমির বাসার সামনে গিয়ে মুক্তাদির একই ধরনের কাজ করতো।

সুমি বলেন, এমনই একপর্যায়ে মঙ্গলবার রাতে তিনি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে তার সঙ্গে দেখা করতে যান। তখন তাদের মধ্যে আবার কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে মুক্তাদিরের বোনকে ফোন দিতে বলেন সুমিকে। আর কান্নাকাটি করে বোনকে বলতে বলেন, মুক্তাদিরই সুমিকে ছেড়ে গেছে। পরে সেখানে তার কথামতো কাজ করেই বাসায় ফেরার জন্য রিকশাতে উঠেন সুমি। তখন মুক্তাদিরও রিকশাতে উঠে তার ব্যাগ নিয়ে নেন। এরপর সুমির ব্যাগ থেকে ফল কাটার ছুরি বের করে নিজেকে আঘাত করার চেষ্টা করে মুক্তাদির। তখন সুমি তাকে আটকাতে গেলে ধস্তাধস্তিতে তার হাতের আঙুল কেটে যায়। তখন টের না পেলেও মুক্তাদির রক্ত দেখে সেখানেই ছুরি ফেলে রেখে পালিয়ে যান বলে দাবি করেন সুমি। খবর পেয়ে শাহবাগ থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল নিয়ে যায়।

ক্ষুব্ধ কণ্ঠে তিনি বলেন, মুক্তাদির আমার জীবনটা শেষ করে দিয়েছে, এর চাইতে আজকে আমাকে মেরে ফেললে মনে হয় ভাল হতো।

শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) গোলাম হোসেন ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, শহীদ মিনারের পাশে রিকশায় তাদের দুই জনের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে মেয়েটির ব্যাগ থেকে ছুরি বের করে মুক্তাদির নামে ওই যুবক তাকে বলে, যদি তুমি আমাকে বিয়ে না করো, তাহলে আমি আত্মহত্যা করবো। তখন মেয়েটি তার হাত থেকে ছুরি ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে মেয়েটির আঙ্গুল কেটে যায়। পরে ওই ছেলে তাকে রেখে পালিয়ে যায়। সুমির ডান হাতের  আঙুল কেটেছে। তবে তার অবস্থা গুরুতর নয়।

দিনবদলবিডি/কে

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়