মঙ্গলবার

২৬ অক্টোবর ২০২১


১১ কার্তিক ১৪২৮,

১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

দিন বদল বাংলাদেশ

আফগান মেয়েদের স্কুলে যাওয়া নিয়ে আশাবাদী ইমরান খান 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || দিনবদলবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৫৩, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১  
আফগান মেয়েদের স্কুলে যাওয়া নিয়ে আশাবাদী ইমরান খান 

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, প্রতিবেশী আফগান নারীদের স্কুলে যেতে না দেওয়া হলে তা হবে ইসলামের পরিপন্থি। বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে ইমরান খান বলেন, আনুষ্ঠানিকভাবে পাকিস্তানের স্বীকৃতি পেতে গেলে নতুন তালেবান সরকারকে কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে।

তালেবানের নেতৃত্বে সবার অংশগ্রহণ এবং মানবাধিকারের প্রতি সম্মান দেখানোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আরো বলেন, আফগানিস্তানকে নিজেদের দেশকে সন্ত্রাসীদের আস্তানায় ব্যবহার করতে দেওয়া উচিত হবে না যারা পাকিস্তানের নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলতে পারে।

গত সপ্তাহে ছেলেদের জন্য স্কুল খুলে দেওয়ার ঘোষণা দেয় তালেবান। কিন্তু মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার বিষয়ে কিছুই জানানো হয়নি। ইমরান খান আশা প্রকাশ করেছেন যে, মেয়েরাও খুব শিগগিরই আবারও স্কুলে ফিরতে পারবে।

বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাতকারে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, তালেবান ক্ষমতায় আসার পর যেসব বিবৃতি দিয়েছে তা খুবই উৎসাহজনক। তিনি বলেন, আমার মনে হয় তারা মেয়েদেরকেও স্কুলে যাওয়ার অনুমতি দেবে। তিনি বলেন, মেয়েদের শিক্ষা অর্জন উচিত নয় এমন ধারণা ইসলামিক নয়। এই চিন্তার সঙ্গে ধর্মের কোনো সম্পর্ক নেই।

এদিকে মঙ্গলবার তালেবানের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, মেয়েদের স্কুল খুলে দেওয়ার বিষয়ে কাজ চলছে। তবে কবে নাগাদ মেয়েদের স্কুল খুলে দেওয়া হবে সে বিষয়ে কোনো সময়সীমা জানাতে পারেননি তিনি। দেশটিতে ছেলেরা স্কুলে যেতে পারলেও হাই স্কুলের মেয়ে শিশুরা এখনও স্কুলে যেতে পারছে না। এ নিয়ে বেশ সমালোচনা শুরু হয়েছে।

এর আগে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত তালেবান ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা ছিল। সে সময় কোনো পুরুষ অভিভাবক ছাড়া নারীরা বাড়ির বাইরে বের হতে পারতেন না। কিন্তু তালেবানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এবারের পরিস্থিতি আলাদা।

তালেবান বলছে, ইসলামি আইনের অধীনে নারীদের অধিকার সম্মানের সঙ্গেই রক্ষা করা হবে। তালেবানের মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ কাবুলে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার বিষয়ে কঠোরভাবে কাজ করছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। যত দ্রুত সম্ভব এটা বাস্তবায়নের চেষ্টা চলছে।

দিনবদলবিডি/এইচ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়