মঙ্গলবার

২৬ অক্টোবর ২০২১


১১ কার্তিক ১৪২৮,

১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

দিন বদল বাংলাদেশ

আরো অগ্রসর চিন্তা করো হে বাংলাদেশ আমার

সোহেল রানা || দিনবদলবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৩:৪৮, ১৪ অক্টোবর ২০২১  
আরো অগ্রসর চিন্তা করো হে বাংলাদেশ আমার

৫০ বছর পর বিশ্ব আবার চরম জ্বালানি বিপর্যয়ের মুখে। ইউরোপ আসিয়ান দেশগুলোতে তেলের দাম সর্বকালের সেরা অবস্থায় আছে। পশ্চিমে তেল সরবরাহ করতে চাচ্ছে না রাশিয়া। ব্রিটেনের মোট বিদ্যুতের ২৪ ভাগই আসতো wind mill থেকে যা গত গ্রীষ্মে তলানিতে ঠেকেছে। জার্মানিতেও wind mill ঘোরানোর মতো বাতাস পাওয়া যাচ্ছে না। ইউরোপে বেশ টি নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট বন্ধ হয়ে হয়েছে আগেই। বিশ্বের সবচেয়ে বড় এলএনজি সরবরাহকারী কাতার জানিয়েছে, জ্বালানির দাম কমাতে তাদের তেমন কিছু করার নেই। কারণ তাদের হাতে রফতানি করার মতো পর্যাপ্ত রিজার্ভ নেই।

তেলের বাজারে এমন অস্থিরতার মাঝেই বেড়েছে কয়লার দাম। বিশ্বব্যাপী কয়লার উৎপাদন কমে আসায় ব্ল্যাকআউটের আশঙ্কায় আছে ভারত, চীন জার্মানি। চীন যেভাবে পারছে প্যানিক বায়ারের মতো কয়লা আর তেল-গ্যাস মজুত করে চলেছে।

অস্ট্রেলিয়ার নিউক্যাসল নামের উন্নতমানের কয়লার দাম সম্প্রতি আড়াই গুণ বেড়েছে যা গত ১৩ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। সাধারণ মানুষ তো বটেই, বড় অর্থনীতির দেশগুলোও দ্বিগবিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে জ্বালানি সংগ্রহে মেতেছে। রিজার্ভের দাপট দেখানো বড় দেশগুলোর এমন আখের গোছানোর মধ্যে উন্নয়নশীল অনুন্নত দেশগুলোর আপাতত চেয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করার নেই।

বাংলাদেশ পৃথিবীর অন্যতম ধান পাট উৎপাদনকারী দেশ। প্রতিবছর এদেশে প্রায় ১২ কোটি টন ধান উৎপাদন হয় এবং পৃথিবীর ৪২% পাট উৎপাদিত হয়। আমার ধারণা, এর মাঝে লুকিয়ে আছেবিকল্প জ্বালানি উৎস। প্রায় / বছর আগে  . কোরিয়া থেকে এক টিম এসেছিল ধানের তুষকে চারকোলের কেক বানিয়ে বানিয়ে নিজ দেশে নেয়া যায় কি না তার সম্ভাব্যতা যাচাই করার জন্য।

দলটি ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম থাইল্যান্ড ঘুরে এসে বাংলাদেশের উত্তরবঙ্গে (দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও অঞ্চল) সঠিক মানে তুষ পেয়েছিল। এখানকার চারকোলে কার্বনের পরিমান সর্বোচ্চ এবং রেলের মাধ্যমে চট্রগ্রাম মারফত কোরিয়াতে রপ্তানি করলে দামেও সুলভ হবে বলে মত দেন তারা। এর পাশাপাশি পাটখড়ি থেকেও উন্নতমানের চারকোল বানানো যেতে পারে বলে তারা ধারণা দেন।

আমাদের সময় এসেছে রাষ্ট্রীয়ভাবেবিকল্প জ্বালানীনিয়ে ভাবার। দেশের গ্যাস বা কয়লাভিত্তিক কারখানাগুলোতে এধরনের বিকল্প জ্বালানী ব্যবহার করা যায় কি না তার জন্য সমীক্ষা বা গবেষণা চালানো প্রয়োজন। ১২ কোটি টন ধানের তুষকে সঠিকভাবেচারকোল কেকবা ‘Charcoal Briquettes’ বানালে এটা দেশের চাহিদা মেটানোসহ উন্নত বিশ্বে মার্কেট পাবে বলে আমার ধারণা।

(লেখকের ফেসবুক পোস্ট থেকে)

দিনবদলবিডি/একে

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়