শনিবার

২৮ মে ২০২২


১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯,

২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

দিন বদল বাংলাদেশ

মুশফিকদের হারিয়ে শীর্ষে মিরাজরা

স্পোর্টস ডেস্ক || দিনবদলবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:১৮, ২৫ জানুয়ারি ২০২২  
মুশফিকদের হারিয়ে শীর্ষে মিরাজরা

মিরাজ

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার (বিপিএল) অষ্টম আসরে মুশফিকুর রহিমদের খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে জয় পেয়েছে মেহেদী মিরাজের চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। এ জয়ে এরইমধ্যে তিন ম্যাচে দুই জয় নিয়ে পয়েন্ট তালিকায় সবার শীর্ষে আছে চট্টলার দলটি।

চট্টগ্রামের দেওয়া ১৯১ রানের বড় টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খায় খুলনা। ইনিংসের সপ্তম ওভারে চট্টলার পেসার রেজাউর রহমান রাজার বাউন্সার পুল করতে গেলে বল গিয়ে লাগে ওপেনার আন্দ্রে ফ্লেচারের মাথায়। সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন ক্যারিবীয় এই বিধ্বংসী ব্যাটার।

শেষমেশ খুলনার ইনিংস থেমে গেছে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৬৫ রানে। খুলনার সর্বোচ্চ ৪০ রানের ইনিংস খেলেন ইয়াসির আলী। এছাড়া দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ মেহেদীর। তরুণ এই ব্যাটার ২৪ বল খরচায় করেন ৩০ রান।

এছাড়া দলীয় কাপ্তান মুশফিকুর রহিম আজও দলের হাল ধরতে ব্যর্থ। ১৫ বলে ১১ রান করার পর হাওয়েলের বলে রেজাউর রাজার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। চট্টগ্রামের হয়ে বল হাতে অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ, শরিফুল ইসলাম এবং রেজাউর রহমান রাজা দুটি করে উইকেট নেন। পাশাপাশি বেনি হাওয়েল এবং নাসুম আহমেদ নেন দুটি করে উইকেট।

এর আগে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে ইংলিশ পেস অলরাউন্ডার বেনি হাওয়েল আজও শেষদিকে ব্যাট হাতে ঝড় তুললেন। তার এক ছয় ও ৪ চারে সাজানো ৩৪ রানের মূল্যবান ইনিংসে ভর করে মুশফিকের খুলনার বিপক্ষে ১৯০ রানের বড় সংগ্রহ পেয়েছে মিরাজের চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। চলতি বিপিএলে এটাই সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ।

টস হেরে শুরুতে ব্যাট করতে নেমেছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। দুই ওপেনার উইল জ্যাকস এবং কেনার লুইস মিলে শুরুটাও করে দারুণ। ইনিংসের প্রথম বলেই অতিরিক্ত থেকে আসে পাঁচ রান। শুভর করা বল ওয়াইড তো হয়ই সঙ্গে সীমানা দড়িও পেরিয়ে যায়। এরপর ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানব কেনার লুইস ছক্কা হাঁকিয়ে যেন স্বাগত জানান বোলারকে। এরপর উইল জ্যাকসের ছয়-চারে এক ওভার শেষেই মিরাজের চট্টলার সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৯ রান!

তবে দ্বিতীয় ওভারেই ছন্দপতন। কামরুল রাব্বির প্রথম বলে ছয় হাঁকানোর পর তৃতীয় বলেই আফগান বোলার নাভিন উল হকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ইংলিশ ব্যাটার জ্যাকস।

জ্যাকস আউট হলেও অন্য প্রান্তে আফিফকে নিয়ে ভালোই এগোচ্ছিলেন কেনার লুইস। তবে দুই চার ও দুই ছয়ে মাত্র ১৪ বলে ২৫ রান করার পর রাব্বির দ্বিতীয় স্বীকার হয়ে সাজঘরে যান তিনি।

লুইস আর জ্যাকসের বিদায়ের পর চট্টলার ইনিংস এগোচ্ছিল কিছুটা মন্থর গতিতে। বিপিএলের চলতি আসরে নিজেকে যেন হারিয়ে খুঁজছেন আফিফ। আগের ম্যাচগুলোর মতো আজও দলকে বড় সংগ্রহ এনে দিতে পারেননি। রানআউটের ফাঁদে পড়ে ফিরে গেছেন।

দিনবদলবিডি/জিএ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়