সোমবার

২৫ জানুয়ারি ২০২১


১২ মাঘ ১৪২৭,

১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

দিন বদল বাংলাদেশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টি ঐতিহ্যে ‘চুনিলালের রাজভোগ’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা || দিনবদলবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:০৮, ১৩ জানুয়ারি ২০২১  
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টি ঐতিহ্যে ‘চুনিলালের রাজভোগ’

চুনিলালের রাজভোগ মিষ্টি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টির ‍সুখ্যাতি দেশ-বিদেশে। লেডি ক্যানি আর ছানামুখী এই জেলার ঐতিহ্য। শত বছরেরও বেশি সময় ধরে খ্যাতি রয়েছে এই মিষ্টির। এখনো সারা দেশ ও বিদেশে যাচ্ছে এই মিষ্টি। নতুন করে এখানকার মিষ্টির কথা উঠে এসেছে চুনিলালের রাজভোগের স্বাদ আর শুদ্ধতায়। 

লেডি ক্যানি আর ছানামুখী শহরের মিষ্টি। মানে শহরের নির্দিষ্ট কয়েকটি দোকনেই তৈরি আর বিক্রি হয় এই মিষ্টি। আর চুনিলালের রাজভোগ প্রত্যন্ত অঞ্চলের। জেলার সরাইল উপজেলার তিতাস নদীর তীরে অরুয়াইল বাজারের ছোট্ট দোকানে।

সুনিল মল্লিক ওরফে চুনিলাল এর সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, প্রায় ৩০ বছর ধরে মিষ্টি বানাচ্ছেন। প্রথম দিকে যেমন করে মিষ্টি বানিয়েছেন এখনো সেই ধারা ধরে রেখেছেন। রঙ গন্ধ আর স্বাদ বাড়াতে বাড়তি কিছুই মেশানো হয় না তার মিষ্টিতে। প্রতিদিন দেশি জাতের গরুর খাঁটি দুধ সংগ্রহ, সেই দুধ থেকে ছানা তৈরি। নব্বই ভাগ ছানা আর দশ ভাগ ময়দাই উপাদান- জানালেন চুনিলাল।  

নিজের তৈরি মিষ্টান্ন হাতে সুনিল মল্লিক ওরফে চুনিলাল

শুরুতে তার মিষ্টির ক্রেতা ছিল স্থানীয়রা। এখন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসেন ক্রেতা। মানুষের হাতে করে দেশের বাইরেও যাচ্ছে এই রাজভোগ। তার মিষ্টি বিক্রি হয় পিস হিসেবে। প্রতিটির দাম ৩৫ টাকা। মিষ্টির নামটিও এখন ‘চুনিলালের রাজভোগ’। 

চুনিলালের কথায়, প্রতিটি মিষ্টি দেড়শ’ গ্রাম ওজনের। চাহিদা থাকলেও প্রতিদিন ৩০০ পিসের বেশি মিষ্টি তৈরি করেন না। মূলত মিষ্টির গুণগত মান আর শুদ্ধতা ঠিক রাখতেই এই কৌশল।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা নাগরিক ফোরামের সভাপতি পীযূষ কান্তি আচার্য বলেন, চুনিলালের সুনাম ছড়িয়েছে খাটি দুধ থেকে ছানা আর সনাতন পদ্ধতিতে মিষ্টি তৈরির কারণে। তার রাজভোগ সুস্বাদু। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টি ঐতিহ্যে এবার যুক্ত হয়েছে চুনিলালের রাজভোগ নামটিও।

দিনবদলবিডি/এস

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়