গভীর রাতে স্বামী পরিত্যক্তা নারীকে তুলে নিয়ে দলবেঁধে ধর্ষণ

বাগেরহাট সংবাদদাতা || দিন বদল বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ রাত ০৯:২৬, সোমবার, ২৫ জুলাই, ২০২২, ১০ শ্রাবণ ১৪২৯
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

বাগেরহাটে দলবেঁধে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন স্বামী পরিত্যক্তা এক নারী (২০)। রবিবার (২৪ জুলাই) দিবাগত মধ্যরাতে বাগেরহাট সদর উপজেলার ডেমা ইউনিয়নের বড় বাশবাড়িয়া এলাকায় এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। গণধর্ষণে গুরুতর অসুস্থ ওই নারীকে প্রতিবেশীরা বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। এ ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে সোমবার দুপুরে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে বাগেরহাট মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এখনো গ্রেপ্তার হয়নি কোনো ধর্ষক। তবে, পুলিশ বলছে ধর্ষকদের আটকে অভিযান চলছে।

স্থানীয়রা বলছে, ডেমা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এক নেতার আশ্রয়ে থেকে ক্ষমতার দাপট দেখানো কয়েকজন বখাটে রবিবার দিবাগত মধ্যরাতে বড় বাশবাড়িয়া গ্রামে স্বামী পরিত্যক্তা এক নারীকে দলবেঁধে ধর্ষণ করে। পরে প্রতিবেশীরা গুরুতর অসুস্থ ওই নারীকে উদ্ধার করে সোমবার সকালে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। খবর পেয়ে বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মাহমুদ হাসান  ও বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম আজিজুল ইসলাম ধর্ষণের শিকার ওই নারীর সঙ্গে কথা বলেন ও বড় বাশবাড়িয়া গ্রামে ঘটনাস্থল পরির্দশন করেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই নারী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, রবিবার দিবাগত রাত ১২টার পরে টয়লেটে যেতে ঘরের বাইরে বের হলে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা বড়বাসবাড়িয়া গ্রামের সাইফুল ইসলাম (২৫), রাব্বি হাওলাদার (২২), জাহিদুল হাওলাদার (৩৫), সজীব হাওলাদার (২৫) ও রিয়াজ হাওলাদার (২৩) আমাকে জাপটে ধরে মুখ চেপে বাড়ির পাশের বাগানে নিয়ে পর্যায়ক্রমে ধর্ষণ করে। আমি এর সঠিক বিচার চাই। ওই নারী আরও বলেন, সাইফুল ইসলামসহ অন্যরা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। এলাকায় নানা ধরনের অপরাধ করাই তাদের কাজ।

ডেমা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মল্লিক মেহেদী হাসান তুপু বলেন, স্বামী পরিত্যক্তা ওই নারীকে ধর্ষণের ঘটনায় জড়িতরা আমার লোক না- ভালো করে চিনিওনা। আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিরা আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। আমি ধর্ষকদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানাই।

ডেমা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী কোন সংগঠনের সাথে জড়িত না থাকলে ওরা হাইব্রিড। ওদের কারণে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হচ্ছে। আমি দ্রুত এসব ধর্ষকদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানাই।

বাগেরহাট সদর হাসপাতালের গাইনী বিভাগের চিকিৎসক ডা. জিনিয়া ফেরদৌস জানান, গুরুতর অসুস্থ ওই নারীকে গাইনী ওয়ার্ডে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যেই গণধর্ষণের আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে।

বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মাহমুদ হাসান জানান, গণধর্ষণের শিকার ওই নারী বাদী হয়ে সোমবার দুপুরে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে বাগেরহাট মডেল থানায় মামলা করেছেন। এখন ওই নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা প্রস্তুতি চলছে। পুলিশ অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে।
 

দিনবদলবিডি/এইচএআর

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়