সালামের প্রচার প্রসারের সামাজিক বন্ধন দৃঢ় হয়

দিন বদল বাংলাদেশ ডেস্ক || দিন বদল বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ বিকাল ০৩:২৫, বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০২২, ৩০ আষাঢ় ১৪২৯
কোনো মুসলমান ভাইয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলে কথা বলার আগে সালাম দেওয়া নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ

কোনো মুসলমান ভাইয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলে কথা বলার আগে সালাম দেওয়া নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ

সালাম অর্থ শান্তি। ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ’ মানে হচ্ছে আপনার ওপর শান্তি ও রহমত বর্ষিত হোক।

প্রত্যেক জাতির মধ্যেই পরস্পরে অভিবাদন জানানো রীতি রয়েছে। ইসলাম মুসলমানদেরকে পারস্পরিক অভিবাদনের জন্য সালামের বিধান দিয়েছে। এটা কোনো গতানুগতিক অভিবাদন নয় বরং একটি তাৎপর্যপূর্ণ প্রার্থনা, যার মাধ্যমে একজন মুসলিম আরেকজন মুসলিমের কল্যাণ কামনা করে। আর এ সালামের প্রচার প্রসারের মাধ্যমে সামাজিক বন্ধন দৃঢ় হয়।

আল্লাহ তাআলা বলেন,

وَإِذَا حُيِّيتُم بِتَحِيَّةٍ فَحَيُّوا بِأَحْسَنَ مِنْهَا أَوْ رُدُّوهَا ۗ إِنَّ اللَّهَ كَانَ عَلَىٰ كُلِّ شَيْءٍ حَسِيبًا

অর্থ: ‘আর তোমাদেরকে যদি কেউ দোয়া করে, তাহলে তোমরাও তার জন্য দোয়া কর; তারচেয়ে উত্তম দোয়া অথবা তারই মতো ফিরিয়ে বলো। নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্ব বিষয়ে হিসাব-নিকাশ গ্রহণকারী।’ (সূরা: নিসা, আয়াত: ৮৬)।

কোনো মুসলমান ভাইয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলে কথা বলার আগে সালাম দেওয়া নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ। আর এর উত্তর দেওয়া অবশ্যকরণীয়। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, তোমরা নিজেদের মধ্যে সালামের প্রচার প্রসার ঘটাও।

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আস (রা.) হতে বর্ণিত, এক ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জিজ্ঞাসা করলো, ‘সর্বোত্তম আমল কী? তিনি বললেন, ‘ক্ষুধার্তকে অন্নদান করো এবং পরিচিত-অপরিচিত নির্বিশেষে সকলকে ব্যাপকভাবে সালাম পেশ করো।’ (বুখারি, হাদিস নম্বর-৬২৩৬, মুসলিম, হাদিস নম্বর-৩৯)।

লেখক- গাজী মো. রুম্মান ওয়াহেদ

দিনবদলবিডি/আরএজে

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়