রাজবাড়ীতে ডেকে নিয়ে ইউপি সদস্যকে গুলি করে হত্যা

দিন বদল বাংলাদেশ ডেস্ক || দিন বদল বাংলাদেশ

প্রকাশিতঃ রাত ০৯:৩৪, বুধবার, ২৯ জুন, ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

নিহত ব্যক্তির নাম ফয়েজুর বিশ্বাস ওরফে ফয়েজ মেম্বার (৫০)। তিনি পাংশা উপজেলার পাট্টা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নির্বাচিত সদস্য ছিলেন। তার বাবার নাম আবদুল হামিদ বিশ্বাস। ফয়েজুরের বাড়ি পাট্টা ইউনিয়নের বিলমণ্ডপ গ্রামে। তিনি দুই সন্তানের জনক ছিলেন। আগেও একবার তাকে গুলি করে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় বছর ১০ আগে রাতে ফয়েজুর ও ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য দেবেশ শীলকে হত্যাচেষ্টা করা হয়। তাদের ফোন করে আঁধারকোটা মোড় নামক এলাকায় ডেকে নিয়ে গুলি করা হয়। দেবেশ ঘটনাস্থলেই নিহত হন। কিন্তু প্রাণে বেঁচে যান ফয়েজুর। আজ বিকেলে তিনি বাহের মোড় নামক বাজারে ছিলেন। এ সময় তার মুঠোফোনে কল আসে। ফোনে কথা বলার পর তিনি একটি ভ্যানে রওনা দেন। কিছু দূর যাওয়ার পর সাওরাইল ইউনিয়নের কুম্বুলমাঠ নামক এলাকায় পৌঁছালে কয়েকজন মুখোশধারী দুর্বৃত্ত তার গতি রোধ করে। স্থানটি বাহের মোড় থেকে আধা কিলোমিটার ও তার বাড়ি থেকে দেড় কিলোমিটার দূরে। তাকে ভ্যান থেকে নামিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়।

পাট্টা ইউপির চেয়ারম্যান আবদুর রব মুনা বিশ্বাস বলেন, ২০১২ বা ’১৩ সালের দিকে দুজন ইউপি সদস্যকে ডেকে নিয়ে গুলি করা হয়। দেবেশ নামের একজন ঘটনাস্থলেই মারা যান। আর ফয়েজুর গুলিবিদ্ধ হলেও বেঁচে যান। দীর্ঘদিন চিকিৎসা গ্রহণ করার পর তিনি সুস্থ হন। আজ বাড়ি থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ফয়েজুর সক্রিয়ভাবে কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। হত্যাকাণ্ডের কারণ সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি।

গুলি করে ইউপি সদস্যকে হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজবাড়ীর সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) সুমন কুমার সাহা। তিনি বলেন, ‘সন্ধ্যা সোয়া সাতটার দিকে বিষয়টি জানতে পেরেছি। আমরা যাচ্ছি। আর আগে গুলি করার বিষয়ে জানি না।’

দিনবদলবিডি/এইচএআর

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়